তামিম ইকবালের এক ফোনেই চাঙ্গা মিরাজ

মিরপুর টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ইনিংস ও ১৮৪ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। টেস্ট ক্রিকেটে দেড় যুগের পথচলায় এই প্রথম প্রতিপক্ষকে ফলো অন করানো ও ইনিংস ব্যবধানে জয়ের অনির্বচনীয় দুটি স্বাদ দল পেল একদিনেই।ম্যাচ জয়ে ধরা দিয়েছে দুই ম্যাচের সিরিজে ২-০তে জয়। বাংলাদেশের এটি চতুর্থ সিরিজ জয়, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয়। হোয়াইটওয়াশের স্বাদ বাংলাদেশ পেল তৃতীয়বার, দুবারই প্রতিপক্ষ এক সময়ের প্রবল পরাক্রমশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজ।এই ম্যাচে একাই ১২ উইকেট নিলেন অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ।

বাংলাদেশের দ্বিতীয় বোলার হিসেবে ম্যাচে ১০ উইকেট নিলেন দ্বিতীয়বার। ২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেই টেস্টে দুই ইনিংসেই নিয়েছিলেন ৬টি করে উইকেট।অথচ চট্টগ্রামে নাঈমের অসাধারণ বোলিংয়ের বিপরীতে একটু অনুজ্জ্বল ছিলেন মিরাজ। তখনই পেলেন তামিমের ফোন। দেশসেরা ওপেনার মিরাজকে বললেন, কিছু অনুপ্রেরণাদায়ী কথা। সেটিতে অনুপ্রাণিত হয়ে মিরপুর টেস্টে ঘূর্ণি বিষে বিবশ করে দিলেন ক্যারিবীয়দের।

Loading...

ক্যারিয়ারসেরা বোলিং করলেন, দ্বিতীয়বারের মতো ম্যাচে পেলেন ১০ উইকেট। ১২ উইকেট নিয়ে হলেন ম্যাচসেরা।ম্যাচ শেষে ক্রিকেটীয় সৌজন্য মেনে দুই দলের খেলোয়াড়েরা সারিবদ্ধ হয়ে করমর্দন করছেন, মিরাজ সারি থেকে বেরিয়ে ছুটে এলেন তামিম ইকবালের কাছে। তামিম মাত্রই অনুশীলন করতে মাঠে ঢুকেছেন। বাঁহাতি ওপেনারে সঙ্গে করমর্দন করে আবার ফিরে গেলেন। তামিমকে একটা ধন্যবাদ দেওয়ার ছিল মিরাজের।

ম্যাচশেষে তামিমের প্রতি মিরাজের তাই কৃতজ্ঞতার শেষে নেই, ‘চট্টগ্রাম টেস্ট শেষ হলে তামিম ভাই আমাকে ফোন করেছিলেন। সিনিয়র খেলোয়াড়েরা আমাদের যেভাবে নির্দেশনা দেন, উৎসাহ দেন, এটা অসাধারণ ব্যাপার। বললেন, মিরাজ তুই কী ধরনের বোলার আমরা জানি। এই টেস্টে ভালো বোলিং হয়নি, হতাশ হওয়ার কিছু নেই। নাঈম ভালো করেছে, তুই খুশি থাক।

কপালে থাকলে তুইও উইকেট পাবি। যদি বেশি চিন্তা করিস, নাঈম ভালো বোলিং করছে, তুই করিসনি, তাহলে কখনো ভালো করতে পারবি না, ভালো বোলার হতে পারবি না। তুই প্রমাণিত বোলার। সব জায়গায় ভালো করেছিস, তোর ঘুরে দাঁড়ানোর সামর্থ্য আছে। ওই রাতে তিনি আমাকে অনেক সমর্থন দিয়েছেন। তার এই সমর্থন আমার কাছে বিশেষ কিছু। ম্যাচের পর দেখেছেন আমি তামিম ভাইয়ের সঙ্গে হাত মিলিয়ে এসেছি।’

Loading...