‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতার ফাইনালে জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী

চীনে চলমান ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতার ৬৮তম আসরে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন বাংলাদেশের সুন্দরী জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। সেখানে বিশ্বের নানা দেশ থেকে আসা সুন্দরীদের সঙ্গে মিস ওয়ার্ল্ড হওয়ার লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছেন তিনি।সম্প্রতি প্রতিযোগিতটির ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ পর্বের ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। এ পর্বের ফলাফলের ভিত্তিতে প্রকাশ করা হয়েছে প্রতিযোগিতার সেরা ৩০ সুন্দরীর নাম, যে তালিকায় এসেছে ঐশীর নামও।

তাও আবার যেনতেনভাবে নয়, গ্রুপ পর্বে নৈপুণ্য প্রদর্শন করে গ্রুপ সেরা হয়েই সেরা ৩০ সুন্দরীর তালিকায় নাম লিখিয়েছেন ঐশী।জানা গেছে, ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের প্রথম রাউন্ডে প্রিয় প্রতিযোগীকে ভোট প্রদানের পদ্ধতিগুলো ছিল – প্রত্যেক দেশের মিস ওয়ার্ল্ড অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে লাইক সংখ্যা, মিস ওয়ার্ল্ড ওয়েবসাইটে কন্টেস্ট্যান্টস অপশনে গিয়ে ভোট প্রদান, অফিসিয়াল মবস্টার অ্যাকাউন্টে প্রতিযোগীদের ছবিতে লাইক দেওয়া ও কমেন্ট করা এবং মডেল পাওয়ার লাইভে নির্দিষ্ট লিংকে ক্লিক করে পছন্দের প্রতিযোগীকে লাইক দেওয়া। ভোট প্রদানের শেষ সময় ছিল ২৮ নভেম্বর।

Loading...

এই চার প্ল্যাটফর্মে সেরা প্রতিযোগীরা স্থান করে নেন ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের দ্বিতীয় রাউন্ডে। এর ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় ৩০ নভেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত। শুক্রবার সন্ধ্যায় ‘মিস ওয়ার্ল্ড’-এর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে প্রকাশিত হয় বিজয়ীদের তালিকা।আসরের মিস ওয়ার্ল্ড ট্যালেন্ট ফাইনালে অস্ট্রিয়া, মিসর, রুয়ান্ডা, চিলি ও জাম্বিয়ার প্রতিযোগীদের পাশাপাশি নৃত্য পরিবেশন করে বিচারকদের মন মাতিয়েছেন ঐশী।

আগামী ৮ ডিসেম্বর চীনের সানাইয়া সিটি এরেনায় হবে ‘মিস ওয়ার্ল্ড ২০১৮’র জমকালো গ্র্যান্ড ফিনালে। সেখানেই ঘোষণা করা হবে বিশ্বের সেরা সুন্দরীর নাম।উল্লেখ্য, পিরোজপুরের মাটিভাঙা এলাকার মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। এইচএসসি পাস করেছেন মাথাভাঙা ডিগ্রি কলেজ থেকে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে এসেছিলেন ঢাকায়। ভর্তি কোচিং করার সময়ই দেখেন ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার বিজ্ঞাপন। নাম লেখান এতে। বেশ কিছু ধাপ পেরিয়ে গত ৩০ সেপ্টেম্বরের গ্র্যান্ড ফিনালেতে বিজয়ী হন তিনি। এর ফলে বিশ্বসুন্দরীর মঞ্চে ওঠার সুযোগ পেলেন ঐশী।

Loading...