ঢাকার একটি হোটেলে শেফের কাজ করতামঃ অক্ষয়

২০১১ সাল। ঢাকায় তিন দেশের শিল্পীদের নিয়ে একটি জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বেসরকারি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কম্পানি। একের পর পরে শিল্পীরা মনে উঠতে শুরু করলেন। পারফর্ম করেই যেতে লাগলেন। দর্শকেরা বিনোদিত হচ্ছে, আনন্দিত হচ্ছে।

 

Loading...

মাঝে মাঝে হাততালিও দিচ্ছে। কিন্তু ওই গতানুগতিক ধারাতে চলতে লাগলো অনুষ্ঠান। সেবারই ঢাকার ওই অনুষ্ঠানে প্রথম আসেন অক্ষয়। অক্ষয় তখন বেশ জনপ্রিয়। কাছাকাছি সময়ে বেশকিছু জনপ্রিয় ছবি উপহার দিয়েছেন।

 

অক্ষয় যখন মঞ্চে উঠলেন তখন হাততালিতে ফেটে পড়লো হল।

যখন মঞ্চে বললেন এটা আমার প্রথম সফর নয় ঢাকায় এর আগেও এসেছি। ফের হাততালি। অক্ষয় বলেন, আমি অভিনেতা হিসেবে নয় এর আগে এসেছি অন্য পরিচয়ে। হল স্তব্ধ। অক্ষয় বললেন, ‘এর আগে আমি ঢাকা এসেছিলাম, তখন আমি হোটেল পূর্বাণীতে শেফ-এর কাজ করতাম। ‘ নেমে এলো পুরো হলজুড়ে নীরবতা।
অক্ষয়ের কথায় তিনি ঢাকার পূর্বানী হোটেলে ৬ মাস কাজ করেছেন। এরপর ব্যাংককেও একই কাজ করেছেন। সেই অক্ষয় এখন সমগ্র ভারতের ‘আইকন। ‘ বলিউডের শীর্ষ সারির নায়ক।

 

১৭০টিরও অধিক ছবিতে অভিনয়কারী জনপ্রিয় বলিউড হিরো অক্ষয় কুমার কয়েক বছর আগে নিউইয়র্কে তার জীবনের গল্প বলতে গিয়ে বাংলাদেশের মানুষকে অভিনন্দন জানান। ‘মা-বাবার আশির্বাদ নিয়ে ঘর থেকে বের হলে সাফল্য আসবেই। আমি সেভাবেই আজকের পর্যায়ে এসেছি এবং এ উপদেশই আমার ভক্তদের দিতে চাই’-বলেন অক্ষয় কুমার।

 

 

বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা অক্ষয় কুমার ২০১৩ সালের নিউইয়র্কের সেই অনুষ্ঠানে বাঙালি প্রযোজক-পরিচালক প্রণব চক্রবর্তীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, ‘তার ‘দিদার’ ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমেই আমার চিত্রজগতে প্রবেশ। আমি তার প্রতি সারাজীবন কৃতজ্ঞ থাকবো।

 

অক্ষয় সবসময় বলেন, বাংলাদেশি, পাকিস্তানি, ভারতীয় ট্যাক্সি ড্রাইভারের প্রায় সকলেই প্রচণ্ড কৌতুহল নিয়ে আমার দিকে তাকায়। তারা বিশ্বাস করতে চান না যে আমি অক্ষয় কুমার। বিষয়টি আমাকে বেশ মজা দেয়। প্রাণ ভরে উপলব্ধি করি। অক্ষয় বলেন, ‘রাস্তায় অপেক্ষা করছি ট্যাক্সির জন্য।

 

এ সময় দেখলাম, একটি ট্যাক্সি আমাকে পাশ কাটিয়ে সামনে গেলেন বেশ কয়েক ব্লক। যাত্রীও ছিলেন ট্যাক্সিতে। আমি কেন জানি না ঐ ট্যাক্সির দিকেই তাকিয়ে ছিলাম। কিছুক্ষণ পর দেখলাম ট্যাক্সিটি তার এক নারী যাত্রীকে অনুরোধ করে নামিয়ে ইউ টার্ন করে আমার কাছে এসে দাঁড়ালো। অপরদিকে, নামিয়ে দেয়া মহিলা যাত্রীটিও দৌড়ে আসতে দেখলাম।

 

কারণ, ট্যাক্সিতে তার জিনিষ ছিল। মহিলাটি অনেক অনুরোধ করলেন গন্তব্যে পৌঁছে দিতে। কিন্তু বাংলাদেশী সেই ক্যাবী সবকিছু উপেক্ষা করে আমাকেই নিলেন। কিছুদূর যাবার পরই তিনি যে আমাকে সত্যি সত্যি চিনে ফেলেছেন তা জানালেন।

 

যদিও আমি তখন পর্যন্ত কোন কথাই বলিনি এ ব্যাপারে। অবশেষে বলতে বাধ্য হয়েছি তার আনন্দ-অনুভূতির কারণে। কী যে খুশি হয়েছিলেন তিনি তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। তার একটি প্রশ্ন ছিল, আমি কেন ট্যাক্সিতে চলাফেরা করছি। ’

 

সম্প্রতি অক্ষয় কুমারের টয়লেট : এক প্রেম কথা মুক্তি পেয়েছে। যেসময় শাহরুখ-সালমানের ছবি দুর্দান্ত ফ্লপ হলো- সেই সময় অক্ষয় যেন বলিউডকে চমকে দিলে টয়লেটের সাফল্য দিয়ে।

Loading...