টি-টোয়েন্টির বাদশাদের দেশে গিয়ে নেপালি তরুণের বাজিমাত

ক্যারিবীয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) পঞ্চম আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় গেইলের সেন্ট কিটস এন্ড নেভিস ও মালিকের গায়না ওয়ারিয়ার্স। ম্যাচটিতে গেইল ৮৬ রানের দায়িত্বশীল ইনিংস খেললেও দলের হার এড়াতে পারেনি। ১৪৭ রানের মাঝারি টার্গেট দিলেও গায়নাকে প্রথম চেপে ধরে কিটসের বোলাররা। নেপালি সন্দিপ লামিচান ও শেলডন কোট্রেলের বোলিং তোপে মাত্র ২৪ রানে তিন টপ অর্ডারকে হারায় গায়না।

এরপর শিমরন হেটমেয়ারের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ের কাছে পাত্তাই পায়নি কিটসের বোলাররা। কিন্তু ব্যাতিক্রম ছিলেন শুধু নেপালি লেগ স্পিনার সন্দিপ লামিচান। আইপিএলের একাদশ আসরেও দুর্দান্ত খেলেছিলেন ১৮ বছর বয়সী লামিচান। সেই ধারাবাহিকতা সিপিএলেও। বিশ্বের বাঘা বাঘা টি-২০ স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যানরা খেলে থাকেন সিপিএলে। এছাড়া ক্যারিবীয়ানরা বরাবরই টি-২০ তে বেশ পোক্ত। সেই মাটিতে নিজের কনিষ্ঠ আঙ্গুলের ভেলকি দেখালেন নেপালি তরুণ।

হেটমেয়ার ও ক্রিস গ্রীন যখন বাকিদের উপর তাণ্ডব চালাচ্ছিলেন তখন ব্যাতিক্রম শুধু লামিচান। ৪ ওভারে ১২ রান খরচায় ২ উইকেট শিকার করেছেন এই লেগ স্পিনার। যেখানে ১৩টি ডট বল দিতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। চার-ছক্কার টি-২০তে কোন ব্যাটসম্যান তার ৪ ওভারে বল বাউন্ডারি পার করতে পারেনি। তবে কি বিশ্ব ক্রিকেট আরেকজন রশিদ খান পেতে যাচ্ছে? লামিচানের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পরও ম্যাচটিতে তার দল হেরেছে ৬ উইকেটে।