দ্বিতীয় তিস্তা সেতু ও রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ চালু হচ্ছে রোববার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

জানাগেছে, গত ফেব্রুয়ারি মাসে জাতীয় সংসদে রংপুর মহানগরী পুলিশ বিল-২০১৮ পাস হয়েছে। রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (আরপিএমপি) বর্তমান আয়তন ৫ শত ১৭ দশমিক ৩ বর্গ কিলোমিটার। রংপুর সদর, মিঠাপুকুর, বদরগঞ্জ, কাউনিয়া ও পীরগাছার কিছু অংশ আরপিএমপি এলাকায় নেয়া হয়েছে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রীসভার নিয়মিত বৈঠকে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ আইন এর খসড়া নীতিগত ভাবে অনুমোদন দেন ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে।

Loading...

রংপুর বিভাগ বাস্তবায়নের পর এ অঞ্চলের গুরুত্ব অনুধাবন করে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ গঠনের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। যে কারণে এর লোকবল, অবকাঠামো, কাজের পরিধি ও কর্ম এলাকা নিয়ে বিস্তরিত প্রস্তাবনা সম্পন্ন হয়। ২০১০ সালের ২৫ জানুয়ারী মন্ত্রী পরিষদের সভায় রংপুরকে বিভাগ করার বিষয়টি অনুমোদন দেয়া হয়।

একই বছর ৯ মার্চ এই বিভাগের বাস্তবায়ন হয় প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে। গত ২০১৩ সালে জাতীয় নির্বাচনের পূর্ব মুহুর্ত ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যেই রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরপিএমপি) কার্যক্রম শুরুর কথা ছিল। জনসংখ্যা প্রায় ১০ লাখের ওপর। কিন্তু সে হিসেবে মাত্র একটি থানা আর ৩টি ফাঁড়ি দিয়ে কোন রকমে চলছে আইশৃঙ্খলা কার্যক্রম।

নগরীর নতুন এলাকা সপ্রসারিত হওয়ায় এর পরিধি আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রতিনিয়ত। অনেক স্থানে অপরাধীরা অপরাধ সংগঠন করে পার পেয়ে যাচ্ছেন। এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে দ্রুত মেট্রোপলিটন পুলিশ প্রয়োজনীয়তা ছিল।

আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন। একই দিন গঙ্গাচড়ায় তিস্তা নদীর ওপর ৮৫০ মিটার গার্ডার সেতুও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

এছাড়াও একইদিনে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কার্যক্রম উদ্বাধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর সহকারি একান্ত সচিব-১ কাজী নিশাত রসুল সাক্ষরিত এক স্মারকে এই তথ্য জানানো হয়।

স্মারক চিঠিতে বলা হয় সকাল ১০ টায় প্রধানমন্ত্রী রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ এবং সাড়ে ১১ টায় তিস্তা সড়ক সেতু উদ্বোধন করবেন। একটি চিঠিকে এ বিষয়ে প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ, রংপুর বিভাগীয় কমিশনারসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সূত্রমতে আরএমপির জনবলের মধ্যে একজন পুলিশ কমিশনার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার একজন, উপ-পুলিশ কমিশনার ২ জন, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ৬ জন, সহকারী পুলিশ কমিশনার ১২ জন,ইন্সপেক্টর ২০ জন, সাব ইন্সপেক্টর ১২০ জন, সার্জেন ১০ জন, সহকারি উপপরিদর্শক (এএসআই) ১৫০ জন, এটিএসআই ১০ জন, নায়েক ৭০ জন, কনস্টেবল ৭৫০ ও অন্যান্য (নন পুলিশ) ৩৩ জন রয়েছেন। এছাড়া ১০টি পুলিশ ফাঁড়ি ও ৮টি পুলিশ বক্স রয়েছে। প্রথমে ১১৫০ জনবল নিয়ে কাজ শুরু হবে।

এদিকে কয়েক দফা মেয়াদ বাড়ানোর পর রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার মহিপুর ও লালমনিরহাট জেলার কাকিনায় দ্বিতীয় তিস্তা সেতুটির মূল অংশের কাজ সম্পন্ন হয়েছে গত বছরের নভেম্বর মাসে। প্রায় ১২৩ কোটি টাকার ব্যয় হয়েছে ৮৫০ মিটার এই সেতুটি নির্মাণে। এটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছিল ২০১২ সালের মার্চ মাসে।

সেতুটি চালু হওয়ায় লালমনিরহাট সদরসহ আদিতমারী, কালীগঞ্জ ও হাতীবান্ধার সঙ্গে গংগাচড়াসহ বিভাগীয় শহর রংপুরের দূরত্ব ৩০-৫০ কিলোমিটার কমে এসেছে। সহজতর হয়েছে পাটগ্রামের বুড়িমারী স্থলবন্দর থেকে পণ্য পরিবহনও। একই সঙ্গে এসব এলাকার মানুষের যাতায়াত-সংক্রান্ত ভোগান্তি বহুলাংশে কমে গেছে।

রংপুর মেট্রোপলিটন এলাকার থানাগুলো হচ্ছে কোতয়ালিঃ কেল­াবন্দ (আংশিক), ভগি (আংশিক), নিশবেতগঞ্জ, ধাপ, চিকলীভাটা, রাঁধাবল­ভ, কাচারী বাজার, ইঞ্জিনিয়ার পাড়া, সেনপাড়া, গুপ্তপাড়া, শালবন, জুম্মাপাড়া, কামালকাছনা, বাহারকাছনা, নুরপুর, তেঁতুলতলা, চামড়াপট্টি, আলমনগর, বাবুপাড়া (আংশিক), বাবুখাঁ, গনেশপুর দোলাপাড়া, কলেজপাড়া (আংশিক), সাতগাড়া, পীরজাবাদ, রামপুরা, ভগিবালাপাড়া, মুন্সিপাড়া, কেরানীপাড়া, গুড়াতিপাড়া, মুলাটোল, ইসলামপুর, নীলকন্ঠ, পান্ডারদিঘী (আংশিক), রবার্টসন্সগঞ্জ, দেওডোবা (আংশিক), বিনোদপুর (আংশিক), রংপুর সদরের চন্দনপাট ইউনিয়ন,

সদ্য পুষ্করণী ইউনিয়ন ও বদরগঞ্জের গোপালপুর ইউনিয়ন। পরশুরাম থানাঃ কুবারু, চব্বিশ হাজারী, পান্ডারদিঘী (আংশিক), হারাটি, খটখটিয়া, কায়দাহারা, আরাজি পশুয়ারী, আমাশু কুকরুল, কুকরুল, বালাকুমার, বিনোদ জলছত্র, পরশুরাম, আটিয়াটারী, নওহাটি কাছনা, বাহার কাছনা ও চওরারহাট। তাজহাট থানাঃ কেডিসি রোড, খেরবাড়ি, বাবুপাড়া (আংশিক), তাজহাট, পাটবাড়ি, আশরতপুর, পার্কেও মোড়, লালবাগ,

বড় রংপুর, তালুক ধর্মদাস, তালুক তামপাট, নগরমীরগঞ্জ, খোর্দ্দ তামপাট, খোর্দ্দ রংপুর, কলেজপাড়া, দর্শনা, ঘাঘটপাড়া, আক্কেলপুর, বিনোদপুর (আংশিক), মানজাই, কিসামত বিষু, নাজিরদিঘর, পানবাড়ি, আরাজি দাস, শেখপাড়া, মিঠাপুকুরের পায়রাবন্দ ইউনিয়ন ও রানীপুকুর ইউনিয়ন। মাহিগঞ্জ থানাঃ মাহিগঞ্জ, ধুমখাটিয়া, ডিমলা, নাছনিয়া, দখিগঞ্জ, বীরভদ্র বালাটারী, দেওয়ানটুলি,

দেওয়ানটুলি ফতেপুর, সাতমাথা, আরাজি মন খামার, মহিন্দ্রা, তালুকবকশি, রাজুখাঁ, আজিজুল­াহ, হোসেন নগর, তালুক রঘু, মেকুরা, পীরগাছার কল্যাণী ইউনিয়ন ও পারুল ইউনিয়ন। হারাগাছ থানাঃ বেনুঘাট, জমচড়া, গুলালবুদাই, বুদাই, কার্তিক, চানকুঠি, চব্বিশ হাজারী (আংশিক), আরাজি গুলালবুদাই, তপোধন, মহব্বত খাঁ, চিলমন, বধুকমলা, সাহেবগঞ্জ, কাছনা,

বীরচরণ, মহাদেব, রামগোবিন্দ (আংশিক), কাউনিয়ার সারাই ইউনিয়ন ও হারাগাছ পৌরসভা। হাজীরহাট থানাঃ বারঘরিয়া, হরিরাম পিরোজ, মনোহর, অভিরাম, শেখটারী, গোয়ালু, নিয়ামত (আংশিক), পান্ডারদিঘী (আংশিক), উত্তম রনচন্ডি (পাগলাপীর), চক ইসবপুর, নজিরের হাট, কামদেবপুর, পঞ্চিম গিলাবাড়ি, পূর্ব গিলাবাড়ি, জগদিশপুর, বকতিয়ারপুর,

বিন্নাটারী, কেরানীরহাট, ভবানীপুর, রাধাকৃষ্ণ পুর, গোপিনাথপুর (আংশিক), রংপুর সদরের হরিদেবপুর ইউনিয়ন, মমিনপুর ইউনিয়ন ও গঙ্গাচড়ার খলেয়া ইউনয়ন।

Loading...