মেডিকেলে চান্স পাওয়া ফরিদার বাবা এক জন রিকশাচালক

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়ে এখনও ভর্তির টাকা জোগার করতে পারছেন না রিকশাচালক ফরিদ আহম্মেদ বাকির মেয়ে ফরিদা আকতার। তার বাড়ি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের জরমনদী গ্রামে। আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবরের মধ্যেই ভর্তি হতে হবে ফরিদাকে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ফরিদ আহম্মেদ বাকির ২ মেয়ে ও ১ ছেলের মধ্যে ফরিদা আকতার সবার বড়। তিনি ২০০৯ সালে জরমনদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পিএসসিতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি, ২০১২ সালে সুন্দরগঞ্জ আমিনা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসিতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি, ২০১৫ সালে একই বিদ্যালয় থেকে এসএসসিতে গোল্ডেন এ প্লাস ও ২০১৭ সালে ঢাকার ক্যামব্রিয়ান কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে উত্তীর্ণ হন। গত ৫ অক্টোবর রংপুর মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলে ফরিদা আকতার উত্তীর্ণ হয়ে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পান।

Loading...

এ ছাড়া ফরিদ আহম্মেদ বাকীর ছোট মেয়ে ফারজানা আকতার ২০১৩ সালে জরমনদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পিএসসিতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি, ২০১৬ সালে সুন্দরগঞ্জ আমিনা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসিতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পায়। সে এখন দশম শ্রেণিতে পড়াশোনা করছে।

ছোট ছেলে মো. সাব্বির হোসেন সৌমিক গাইবান্ধা শহরের সিরাতুল মুস্তাকিন ক্যাডেট মাদরাসায় ৮ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করছে।

অভাবের মধ্যেও রিকশাচালক ফরিদ আহম্মেদ বাকী সন্তানদের শিক্ষিত করে তুলছেন। বর্তমানে তাকে বৃদ্ধ মাসহ ছয়জনের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। তাই তিনি মেয়ে ফরিদা আকতারকে মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য সমাজের বিত্তবান মানুষদের সহযোগিতা চেয়েছেন।

০১৯৫৬-১৬০৩৩৬ নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে ফরিদ আহম্মেদ বাকীর সঙ্গে।

Loading...