সাইক্লোন, হ্যারিকেন, তিতলি ঝড়ের এমন অদ্ভুত নামকরণ কিভাবে হয়? জানুন বিস্তারিত……

এসব দেশের প্রস্তাব অনুসারে একটি তালিকা থেকে একটির পর একটি ঝড়ের নামকরণ করা হয়।যেমন তিতলির নামকরণ করেছে পাকিস্তান। এর পরের ঝড়টির নাম হবে গাজা, থাইল্যান্ডের প্রস্তাব অনুসারে।

তিতলি শব্দটি হিন্দি যার অর্থ প্রজাপতি। অর্থ সুন্দর হলেও ঘূর্ণিঝড় তিতলি কিন্তু সুন্দর নয়। উল্টে একটু বেশি মাত্রায় ভয়ঙ্কর।

Loading...

বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা আঞ্চলিক কমিটি একেকটি ঝড়ের নামকরণ করে।

যেমন ভারত মহাসাগরের ঝড়গুলোর নামকরণ করে এই সংস্থার আটটি দেশ। দেশগুলো হচ্ছে: বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, মায়ানমার, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড এবং ওমান।

বৃহস্পতিবার ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটার ঝোড়ো হাওয়া তার সঙ্গে প্রবল বৃষ্টি নিয়ে ওড়িশার গোপালপুরে আছড়ে পড়ার কথা তিতলির। ‌

এখন প্রশ্ন উঠতেই পারে বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া ঘুর্ণিঝড়ের নাম পাকিস্তান দেবে কেন?‌ এই অধিকারটা পাকিস্তানকে দিয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। নিয়ম অনুযায়ী আটটা ঝড়ের নাম দেওয়ার অধিকার থাকে এক একটা দেশের।

ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, মালদ্বীপ, মিয়ানমান, ওমান, শ্রীলঙ্কা এবং থাইল্যান্ড এই আটটা দেশের জন্য মোট ৬৪টি ঝড়ের নামকরণের দায়িত্ব রয়েছে।

রাষ্ট্রপুঞ্জের বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা নিয়মিত এই নামকরণের চক্রটিতে নজরদারি চালায়। কাজেই ফাঁকি দেওয়ার কোনও উপায় নেই। আবার কোনও দেশ জোর করে বলতে পারে না সেই দেবে নাম।

এক একটি দেশের ভাগে পড়ে আটটা করে ঝড়ের নাম করণ। যখন যার ভাগে পড়ে তখন সেই দেশ নাম দেয়। এবারে পাকিস্তানের ভাগে পড়েছে। সেকারণেই হিন্দি শব্দ তিতলি নামে নামকরণ করা হয়েছে বঙ্গোপসাগরের এই ঘূর্ণিঝড়ের।

Loading...