মেয়ের কাছে বাবা দোষী, বাবা বললেন মেয়ে মানসিক রোগী

সুরেশ খাঁটি সরিষার তেলের কর্ণধার সুধীর চন্দ্র সাহার মেয়ে লিমা সাহা পালিয়ে সৈকত পাল নামের এক যুবককে বিয়ে করেন চলতি বছরের মে মাসে। সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে এসে লিমা সাহা দাবি করেন, বিয়ে মেনে নিতে না পেরে সুধীর সাহা তাদের জীবন বিষিয়ে তুলেছেন। তবে শনিবার সুধীর সাহা এক সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেন, তার মেয়ে মানসিকভাবে অসুস্থ এবং তার কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে লিমাকে ফুসলিয়ে বিয়ে করেছেন সৈকত।

সকালে ডিআরইউতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সুধীর সাহা দাবি করেন, তার প্রতিষ্ঠান অন্নপূর্ণা মিলে প্রায় ১২ শতাধিক কর্মচারী কাজ করেন এবং তার সম্পত্তির মূল্য প্রায় ৩০ থেকে ৪০ কোটি টাকা। তার মেয়ে অনেকদিন ধরেই মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত এবং এই সমস্যা কাটাতে তিনি মেয়েকে নিয়ে তিনি একাধিকবার চিকিৎসকেরও শরণাপন্ন হয়েছেন। তবে তার সম্পত্তি হাতিয়ে নেয়ার জন্য সৈকতের পরিবার লিমাকে নানা ভাবে ফুসলাতে থাকে এবং ধর্মীয় রীতি না মেনেই তার মেয়েকে বিয়ে করেন। এছাড়া ২৪ জুলাই সৈকত পাল একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন।

Loading...

বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি সৈকতকে সহায়তা করেছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন সুধীর। তিনি এসময় তাদের নাম উল্লেখ করেন এবং ‘দোষী’দের বিচার দাবি করেন। এ বিষয়ে সৈকত পাল বলেন, তার এ সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন। তিনি আমাকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই গ্রেফতার হয়েছেন। তিনি জামিনে বের হওয়ার পর তিনি আমার নামে ছয়টি মামলা দিয়েছেন এবং আদালত এরইমধ্যে দুইটি মামলায় আদালত আমাকে খারিজ দিয়েছেন। আর কিছুদিন এক সংবাদ সম্মেলনে লিমা নিজেই ঘটনার বিস্তারিত জানিয়েছেন।

Loading...