জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট-ইসির মিটিংয়ে উত্তপ্ত কথোপকথন!

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আগামী ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণার সময় নির্ধারণ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ওই দিন তফসিল ঘোষণা না করে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিতীয় দফা সংলাপের ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করার অনুরোধ জানিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।সভায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সদস্যদের সঙ্গে ইসি কমিশনারদের উত্তপ্ত কথোপকথন হয়েছে বলে জানা গেছে।

ঐক্যফ্রন্ট নেতারা বর্তমান ইসির ওপর মানুষের আস্থা নেই বলে মন্তব্য করলে উত্তরে উত্তরে একজন কমিশনার বলেন, রাজনীতিবিদদের ওপর মানুষের আস্থা নেই।তবে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়নি, গলার আওয়াজ উচ্চস্বরে ছিল বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ।

Loading...

এর আগে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দিয়েছিল জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ওই চিঠি প্রেক্ষিতে সোমবার ইসির সঙ্গে মিটিং হয় ঐক্যফ্রন্টের। ওই মিটিংয়ে এ অনুরোধ জানানো হয়েছে।ইসির সঙ্গে বৈঠক শেষে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা আ স ম আবদুর রব সাংবাদিকদের এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন। পরে ইসি সচিবও সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বিকাল ৪টায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি (জেএসডি) আ স ম আবদুর রবের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল আলোচনার জন্য নির্বাচন কমিশনে যায়। জাতীয় নির্বাচনের তফসিল পেছানো, বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে সেনা মোতায়েন, ইভিএম বাতিল এবং ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করার বিষয় নিয়ে সেখানে ইসির সঙ্গে ঐক্যফ্রন্ট নেতারা আলোচনা করেন।সভায় ঐক্যফ্রন্ট নেতা সুলতান মো. মনসুর অতীত অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বলেন, ‘নির্বাচনের আগের দিন পুলিশ বিরোধী দলের এজেন্টদের আটক করে নিয়ে যাচ্ছে। ইসি কিছু করতে পারেনি। ফলে আপনাদের দিয়ে কীভাবে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে?

এই নির্বাচন কমিশনের প্রতি মানুষের আস্থা নেই বলে মন্তব্য করেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।মান্নার ওই মন্তব্যের পর নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি মানুষের আস্থা নেই। ইভিএম বিষয়ে তিনি বলেন, ইভিএমে কারচুপির কোনো সুযোগ নেই, এটা পরীক্ষিত।

জবাবে মান্না বলেন, কারচুপির সুযোগ রয়েছে।

বৈঠকে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে আ স ম আবদুর রব ছাড়াও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহামুদুর রহমান মান্না, ঐক্যফ্রন্ট নেতা সুলতান মনসুর, বরকতুল্লাহ বুলু ও নঈম জাহাঙ্গীর।অন্যদিকে ইসির পক্ষে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বে কমিশনার মাহবুব তালুকদার, কবিতা খানম, রফিকুল ইসলাম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী।আর ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন জাসদ জেএসডি সভাপতি আসম আবদুর রব, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহামুদুর রহমান মান্না, বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বরকতুল্লাহ বুলু, ঐক্যফ্রন্ট নেতা সুলতান মনসুর, ও নঈম জাহাঙ্গীর।

Loading...