রডের মূল্য বাড়ানোর কারণ লিখিতভাবে জানান: এফবিসিসিআই সভাপতি

হঠাৎ রডের মূল্য বৃদ্ধিতে ক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘রডের দাম বৃদ্ধির যৌক্তিক কারণ লিখিত আকারে জানান।’ বৃহস্পতিবার (২৯ মার্চ) রাজধানীর মতিঝিলে চেম্বার ভবনে অনুষ্ঠিত ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের বাজেট উপলক্ষে রাজস্ব নীতিমালা, আমদানি শুল্ক, মূল্য সংযোজন কর (মুসক) ও আয়কর এবং মাঠ পর্যায়ে মুসক ও কর বিষয়ে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, কয়েক মাসের ব্যবধানে টনপ্রতি রডের মূল্য বেড়েছে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। এমন পরিস্থিতিতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে এফবিসিসিাই সভাপতি বলেন, ‘প্রতি টন রড উৎপাদনে আাপনাদের কত টাকা খরচ বেড়েছে? আপনারা লিখিতভাবে জানান।’

এ সময় তিনি একইসঙ্গে জানতে চান, এ সময়ে উৎপাদন খরচ যা বেড়েছে তার সঙ্গে আপনারা রডের যে দাম বাড়িয়েছেন, তা যৌক্তিক কিনা। আপনারা প্রতিটন রডের দাম বাড়িয়েছেন কত? দাম বাড়ানোর যৌক্তিকতা কতটুকু? এর সঙ্গে ব্যবসায়ীদের ভাবমূর্তি জড়িত।’

এ সময় সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, বিজিএমইএ-এর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমানসহ সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে রড ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধি মেট্রোসেম সিমেন্ট কোম্পানির এমডি মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ বলেন, ‘দাম বাড়ার পেছনে তিন-চারটি কারণ রয়েছে, এর মধ্যে অন্যতম রডের কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধি। যা যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করতে হয়। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র রড তৈরির এই কাঁচামালের ওপর কর বাড়িয়েছে। এর আমদানি খরচ ৩০০ ডলার থেকে বেড়ে এখন ৪৩০ ডলার হয়েছে।’ একইসঙ্গে পরিবহন ব্যয় ও বন্দর খরচও বেড়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।